সাকিবের পর মিরাজের আঘাত

PB

পাহাড় সমান রান তাড়া করতে নেমে শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলে উইন্ডিজ। ১৮ রানে ওপেনার ইভিন লুইসের বিদায়ের পরও নিকোলাস পুরানকে সঙ্গে নিয়ে ব্যাটিং তাণ্ডব চালিয়ে যান শাই হোপ। ওয়ানডে সিরিজে তিন ম্যাচে দুটি সেঞ্চুরি করা ক্যারিবীয় এই ওপেনার শুরু থেকেই একের পর এক বাউন্ডারি হাঁকাতে থাকেন। ৪ ওভারে ১ উইকেটে ৫২ রান সংগ্রহ করা উইন্ডিজের লাগাম টেনে ধরেন সাকিব ও মিরাজ।

নিজের প্রথম ওভারে বোলিংয়ে এসে ১০ রান দিয়ে নিকোলাস পুরানের উইকেট তুলে নেন সাকিব। ঠিক পরের ওভারে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা শাই হোপকে ক্যাচ তুলতে বাধ্য করেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ৭ ওভারের খেলা শেষে ৩ উইকেট হারিয়ে ৭৩ রান।

প্রথম সাফল্য রনির:
ইভিন লুইসকে সাজঘরে ফিরিয়ে উদ্বোধনী জুটি ভাঙলেন আবু হায়দার রনি। ২১২ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ১৮ রানে প্রথম উইকেট হারায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

উইন্ডিজের বিপক্ষে টাইগারদের রানের পাহাড় সিরিজে ফেরার দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে রানের রেকর্ড গড়েছে বাংলাদেশ দল। লিটন দাসের ফিফটি (৬০) এবং সাকিব আল হাসান এবং মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের অপরাজিত ৪২ ও ৪৩ রানে ভর করে ৪ উইকেটে ২১১ রানের পাহাড় গড়েছে বাংলাদেশ।

প্রথম টি-টোয়েন্টিতে জয় পাওয়া ওয়েস্ট ইন্ডিজকে সিরিজ নিশ্চিত করতে হলে ২১২ রান করতে হবে।

এর আগে চলতি বছরের আগস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাঠে টি-টোয়েন্টির সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে সর্বোচ্চ ১৮৪/৫ রান সংগ্রহ করেছিল বাংলাদেশ। সেই ম্যাচে ডিএল মেথডে ১৯ রানে জয় পায় সাকিব আল হাসানের দল।

টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের দলীয় সর্বোচ্চ সংগ্রহ ৫ উইকেটে ২১৫ রান। যেটা চলতি বছরের মার্চে শ্রীলংকার বিপক্ষে কলম্বোয় ত্রিদেশীয় সিরিজে সংগ্রহ করেছিল টাইগাররা।

১০ রানে নেই ৩ উইকেট:
ভালো শুরুর পরও ব্যাটিং বিপর্যয়। উদ্বোধনীতে ৪২ রান করা বাংলাদেশ, দ্বিতীয় উইকেটে তুলে নেয় ৬৮ রান। একটা সময়ে ১ উইকেটে বাংলাদেশের সংগ্রহ ছিল ১১০ রান। এরপর মাত্র ১০ রানের ব্যবধানে ৩ উইকেট হারিয়ে কোণঠাসা হয়ে পড়ে বাংলাদেশ।

সৌম্য সরকার এবং লিটন দাসরা ৩২ ও ৬০ রান করে করলেও সুবিধা করতে পারেননি মুশফিকুর রহিম। রানের খাতা খোলার সঙ্গে সঙ্গেই তিনি সাজঘরে ফেরেন।

ফিফটি করে সাজঘরে লিটন:
দুর্দান্ত খেলেছেন লিটন কুমার দাস। উদ্বোধনীতে তামিমের সঙ্গে ৪২, এরপর দ্বিতীয় উইকেটে সৌম্য সরকারের সঙ্গে ফের ৬৮ রানের জুটি গড়ে দলকে বড় সংগ্রহের পথে নিয়ে যান লিটন। ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ফিফটি তুলে নিয়ে ৩৪ বলে ছয় চার ও চারটি ছক্কায় ৬০ রান করে ফেরেন লিটন দাস।

প্রথম টি-টোয়েন্টিতে দাপুটে জয়ে ৩ ম্যাচ সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে আছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সিরিজ জয়ের আশা বাঁচিয়ে রাখতে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে জয়ের বিকল্প নেই বাংলাদেশের।

এ ম্যাচ জিতলেই সিরিজ নিশ্চিত হবে উইন্ডিজের। আবার সিরিজে সমতায় ফিরতে চায় বাংলাদেশ। ফলে শক্তিশালী একাদশ নিয়ে মাঠে নামছে স্বাগতিকরা। সেক্ষেত্রে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতেও প্রথম ম্যাচের একাদশ রেখে দেয়ার সম্ভাবনাই বেশি। আর পরিবর্তন হলে দু’জন বাইরে চলে যেতে পারেন। বাদ পড়তে পারেন আরিফুল হক ও আবু হায়দার রনি।

এমনটি হলে স্বাভাবিকভাবেই দু’জন অন্তর্ভুক্ত হবেন। আরিফুলের স্থানে ঢুকতে পারেন মোহাম্মদ মিঠুন। আর রনির জায়গায় খেলতে পারেন রুবেল হোসেন। আবার সেই স্থলে নাজমুল ইসলাম অপুও ইন হতে পারেন।

বাংলাদেশ একাদশ:
তামিম ইকবাল, লিটন দাস, সৌম্য সরকার, সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, আরিফুল হক, মেহেদি হাসান মিরাজ, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, আবু হায়দার রনি ও মোস্তাফিজুর রহমান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *